উত্তরঃ- নিম্নে এক বা দুইদিন মাসিক হয়ে, ১৫ দিন মাসিক বন্ধ থাকলে, করণীয় কি। তা দেওয়া হলোঃ

  • যদি কোনো মহিলার এক বা দুই দিন মাসিক হয় এবং তারপর যদি ১৫ দিন মাসিক বন্ধ থাকে, তাহলে তার এই প্রথম দুই বা একদিনকে হায়েয বলা হবে না বরং এস্তেহাযা ধরা হবে। তাই সে এই সব কটি দিনই পাক থাকবে। কারন, প্রথমত তার দুই দিন মাসিক হয়েছে।  কেননা, তিন দিনের কম মাসিকের রক্তকে হায়েয বলা হয় না,  যা হাদিস দ্বারা নির্ধারিত। আর দ্বিতীয়ত তার যে ১৫ দিন রক্ত বন্ধ ছিল, তা তো পবিত্রতারই সময়। কেননা, পাক থাকার সর্বনিম্ন সময় হচ্ছে ১৫ দিন। সুতরাং, প্রথম দুই দিনের রক্তকে এস্তেহাযা ধরা হবে।

  • আর, যদি দুই বা একদিন মাসিক হয়ে বন্ধ হওয়ার পর, ১৫ দিনের আগে আবার শুরু হয় এবং একদিন বা দুইদিন পর বন্ধ হয়, তাহলে তা হায়েয ধরা হবে। এমতাবস্থায়, ঐ মহিলার আগে যতদিন মাসিক হওয়ার অভ্যাস ছিল, ঠিক ততদিন হিসাব করে, বাকি দিনগুলোকে এস্তেহাযা ধরবে।

  • আর, যদি ১৫ দিন পার হয়ে যাওয়ার পর, আবার দুই-এক মাসিক হয়। তাহলে এমতাবস্থায় তা হায়েয ধরা হবে না বরং এস্তেহাযা ধরা হবে।

তথ্যসূত্রঃ বেহেশতি জেওর ১ম খন্ড। তবে এখানে আমার নিজের ব্যাখ্যাও রয়েছে।




Post a Comment

Previous Post Next Post

কোনো কিছু জিজ্ঞাসা করতে চান?


সুপ্রিয় বন্ধুরা! আপনারা কোনো কিছু জানতে চাইলে, পোষ্টের কমেন্ট বক্সে জিজ্ঞাসা করতে পারবেন। আর আমাদের সাইটের কোনো লিংকে ক্লিক করার পর অন্য সাইটে চলে গেলে ভয় পাবেন না। তা কেটে দিয়ে অথবা মোবাইলের ব্যাক বাটনে ক্লিক করে আবার ঐ লিংকে ক্লিক করুন কাঙ্ক্ষিত তথ্য পাবেন। -------ধন্যবাদ��