উত্তরঃ নামাযের ফরয ১৩টি । নিম্নে প্রমাণ সহ দেওয়া হলোঃ

নামাযের বাইরে ৭টি ফরযঃ

  •  শরীর পাক হওয়া। [সূরা মায়িদা আয়াত : ৬] 
  • কাপড় পাক হওয়া। [সূরা মুদ্দাছ্‌ছির, আয়াত : ৪]
  • নামাযের জায়গা পাক হওয়া। [সূরা বাকারা, আয়াত : ১২৫]
  • ছতর ঢাকা (অর্থাৎ পুরুষগণের নাভি হতে হাঁটুর নীচ পর্যন্ত এবং মহিলাদের চেহারা, কব্জি পর্যন্ত দুই হাত এবং পায়ের পাতা ব্যতিরেকে সমস্ত শরীর ঢেকে রাখা)। [সূরা  আ‘রাফ, আয়াত : ৩১]
  • কিবলামুখী হওয়া। [সূরা বাকারা, আয়াত : ১৪৪]
  • ওয়াক্তমত নামায পড়া। [সূরা নিসা আয়াত : ১০৩]
  • অন্তরে নির্দিষ্ট নামাযের নিয়ত করা। [বুখারী শরীফ, হাদীস নং-১]


নামাযের ভিতরে ৬টি ফরযঃ

  • তাকবীরে তাহরীমা অর্থাৎ শুরুতে আল্লাহু আকবার বলা। [সূরা মুদ্দাছছির, আয়াত : ৩] 
  • ফরয ও ওয়াজিব নামায দাঁড়িয়ে পড়া। [সূরা বাকারা,আয়াত ২৩৮] 
  • ক্বিরা‘আত পড়া (অর্থাৎ কুরআন শরীফ হতে ছোট এক আয়াত পরিমাণ পড়া।) [সূরা মুয্‌যাম্মিল ,আয়াত : ২০] 
  • রুকু করা। [সূরা হজ্জ, আয়াত : ৭৭] 
  • দুই সিজদা করা। [সূরা হজ্জ, আয়াত : ৭৭] 
  • শেষ বৈঠক (নামাযের শেষে তাশাহহুদ পরিমাণ বসা) [আবু দাউদ, হাদীস নং-৯৭০]
বি.দ্র. নামাযি ব্যক্তির নিজস্ব কোন কাজের মাধ্যমে (যেমন- সালাম ফিরানো) নামায থেকে বের হওয়াও একটা ফরয। (আল বাহরুর রায়িক, ১ : ৫১৩)

আর নামাযের কোন ফরয বাদ পড়লে নামায বাতিল হয়ে যায়। সাহু সিজদা করলেও নামায সহীহ হয় না।

[প্রমাণঃ- আল বাহরুর রায়িক, ১ : ৫০৫ শামী, ১ : ৪৪৭/ হিদায়া, ১ : ৯৮ ]


Post a Comment

Previous Post Next Post