বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড এর অধীনে দেশের সকল সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল-কলেজ ও পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট গুলুতে ০৪ (চার) বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং, ডিপ্লোমা ইন-টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এবং ডিপ্লোমা ইন-ট্যুরিজম এন্ড হসপিটালিটি কোর্সে ১ম ও ২য় শিফটে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০১৯-২০ প্রকাশ করেছে। প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি অনুসারে ১২/০৫/২০১৯ থেকে ০৮/০৬/২০১৯ পর্যন্ত অনলাইনে ভর্তির জন্য প্রাথমিক আবেদন করা যাবে।

আবেদনের যোগ্যতাঃ


  • ২০১৭, ২০১৮ ও ২০১৯ সালের এসএসসি বা সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী এবং ছেলেদের ক্ষেত্রে সাধারণ গণিত বা উচ্চতর গণিতে জি.পি.এ ৩.০০ পয়েন্ট সহ ন্যূনতম মোট জি.পি.এ ৩.৫০ প্রাপ্ত শিক্ষার্থী এবং মেয়েদের ক্ষেত্রে সাধারণ গণিত বা উচ্চতর গণিতে জি.পি.এ ৩.০০ পয়েন্ট সহ ন্যূনতম মোট জি.পি.এ ৩.০০ প্রাপ্ত শিক্ষার্থী এবং 'ও' লেভেলে যেকোনো একটি বিষয়ে 'সি' গ্রেড প্রাপ্ত এবং গণিতসহ অন্য যেকোনো দুই বিষয়ে কমপক্ষে 'ডি' গ্রেড প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবে। 
  • এস.এস.সি সহ বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত ০২ (দুই) বছর মেয়াদি ট্রেড কোর্স পাস প্রার্থীরাও আবেদন করতে পারবে। তবে আবেদন ফরম জমা দেওয়ার শেষ তারিখ পর্যন্ত আবেদনকারীর বয়স অনূর্ধ্ব ২২ বছর হতে হবে। 

আবেদন ফিঃ ১ম ও ২য় শিফটের প্রত্যেক শিফটের জন্য আবেদন ফি ১৫০/- টাকা ।

ভর্তি সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ তারিখসমূহঃ


  • আবেদনের সময়সীমাঃ ১২/০৫/২০১৯ থেকে ০৮/০৬/২০১৯ তারিখ পর্যন্ত।
  • মেধা তালিকার ফল প্রকাশঃ ১৫/০৬/২০১৯
  • মূল মেধা তালিকা হতে ভর্তির সময়সীমাঃ ১৬/০৬/২০১৯ থেকে ২৫/০৬/২০১৯ তারিখ পর্যন্ত
  • ১ম অপেক্ষমান তালিকার ফল প্রকাশঃ -/০৬/২০১৯
  • ১ম অপেক্ষমান তালিকা হতে ভর্তির সময়সীমাঃ ২৯/০৬/২০১৯ থেকে ২৫/০৭/২০১৯ তারিখ পর্যন্ত
  • ২য় অপেক্ষমান তালিকার ফল প্রকাশঃ -/--/----
  • ২য় অপেক্ষমান তালিকা হতে ভর্তির সময়সীমাঃ --/--/----
  • ক্লাশ শুরুর তারিখঃ ১১/০৮/২০১৯

পলিটেকনিকে আবেদন করার পদ্ধতি ও নিয়মাবলিঃ 
  • ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীকে আবেদন করার ১ ঘন্টা পূর্বে টেলিটক/রকেট/শিওর ক্যাশ এর মাধ্যমে ১ম শিফট বা ২য় শিফট অথবা উভয় শিফটের জন্য আবেদন ফি বাবত ১৫০ অথবা ৩০০ টাকা sms করে ১৬২২২ নম্বরে প্রদান করতে হবে। 
  • বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এস.এস.সি উত্তীর্ন আবেদঙ্কারিদের নম্বরপত্র/মার্কশীট এর সত্যায়িত কপি ও পাসপোর্ট সাইজের সত্যায়িত ২ কপি রঙ্গিন ছবিসহ, নির্ধারিত ফরমে আবেদন পত্র আগামী ১০/০৬/২০১৯ তারিখের অফিস চলাকালীন সময়ের মধ্যে, কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের পুরাতন বিল্ডিং এর ৪১২ নং কক্ষে সরাসরি পঊছানো নিশ্চিত করতে হবে। আবেদন ফরমটি কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইট থেকে পাওয়া যাবে। নির্ধারিত সময়ের পর প্রাপ্ত আবেদন বিবেচ্য হবে না। 
  • সংরক্ষিত কোটার (ভোকেশনাল ও মহিলা কোটা ব্যতীত) আবেদনকারীগন অন-লাইনে আবেদন করার পরে, আবেদনের প্রিন্ট কপি ও বিজ্ঞপ্তিতে বর্ণিত সকল কাগজ ১০/০৬/২০১৯ তারিখের অফিস চলাকালীন সময়ের মধ্যে, কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের পুরাতন বিল্ডিং এর ৪১২ নং কক্ষে সরাসরি বা ডাকযোগের মাধ্যমে পৌছানো নিশ্চিত করতে হবে। অন্যাথায় তার কোটা বিবেচিত হবে না।
ফি জমা দেওয়ার পদ্ধতিঃ  
  • টেলিটক প্রিপেইড সংযোগ/সিম থেকে মোবাইলের মেসেজ অপশনে গিয়ে লিখুন  BTAD <space> এসএসসি/সমমান পরীক্ষা পাসের Board এর নামের প্রথম তিন অক্ষর <space> এসএসসি/সমমান পরীক্ষা পাসের রোল নম্বর<space>এসএসসি/সমমান পরীক্ষা পাসের সন <space> ভর্তিচ্ছু শিফটের নির্দিষ্ট অক্ষর । এরপর প্রেরন করুন ১৬২২২ নাম্বারে।

          উদাহরণঃ BTAD DHA 123456 2019 S

         **উপরের উদাহরনে S -এর স্থলে ১ম শিফট হলে A দিবেন। ২য় শিফট হলে B দিবেন। আর উভয় শিফট হলে C দিবেন।


  • তারপর প্রার্থী আবেদনের যোগ্য হলে ফিরতি SMS- এ আবেদন কারীর নাম, পিতার নাম এবং ১ম বা ২য় শিফটের জন্য আবেদন ফি বাবত ১৫০/- অথবা উভয় শিফটের জন্য আবেদন ফি বাবত ৩০০/- টাকা কেটে রাখার সম্মতি চেয়ে ফিরতি SMS দেওয়া হবে। ফিরতি SMs- এ আবেদনকারীর তথ্যাবলি সঠিক থাকলে, পূনরায় SMS পাঠিয়ে  সম্মতি দিবেন। সম্মতি দেওয়ার জন্য নিম্নোক্তভাবে মেসেজ অপশনে গিয়ে লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে,


          BTAD<space>YES<space>PIN Number<space>মোবাইল নম্বর 

          উদাহরণঃ BTAD YES 252525 0171725****

         উল্লেখ্য যে, যেকোনো অপারেটরের মোবাইল নম্বর শুধুমাত্র একজন প্রার্থীর ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে হবে।


  • এরপর ফিরতি SMS- এ প্রার্থীকে একটি Money receipt number দেওয়া  হবে। উল্লেখ্য যে,  Money receipt number টি নিজ দায়িত্বে সংরক্ষণ করতে হবে এবং এটি পাওয়ার পর অনলাইনে আবেদন ফরম পূরন করতে হবে।  Money receipt number ছাড়া কোনোভাবেই অনলাইনে আবেদন ফরম পূরন করা যাবে না। 

আবেদন ফরম পূরনের ধাপঃ  এই লিংক থেকে প্রয়োজনীয় তথ্য পূরণ করে আবেদন করতে হবে।

মেধাতালিকা প্রণয়নঃ
এসএসসি সমমান পরীক্ষায় পাসের রেজাল্ট, পছন্দের ক্রম, কোটা ও অন্যান্য প্রযোজ্য শর্তের ভিত্তিতে প্রার্থীর মেধা তালিকা প্রণয়ন করা হবে।

আপেক্ষমান তালিকা প্রণয়নঃ
  • মোট আসন সংখ্যা অনুযায়ী মেধা, পছন্দের ক্রম ও কোটা ভিত্তিক তালিকা প্রণয়নের পাশাপাশি একটি অপেক্ষমাণ তালিকা প্রণয়ন করা হবে।
  • মেধাক্রম অনুযায়ী ভর্তিকৃত প্রার্থী পছন্দের ক্রমানুসারে প্রতিষ্ঠান-টেকনোলজি ভিত্তিক মাইগ্রেশনের সুযোগ পাবে।
  • মেধা তালিকা অনুযায়ী ভর্তির সময়সীমা অতিক্রান্ত হওয়ার পর প্রতিষ্ঠান/টেকনোলজি ভিত্তিক শূন্য আসনে অপেক্ষমান তালিকা হতে মেধা, পছন্দের ক্রম ও কোটার ক্রমানুসারে ভর্তি করা হবে।
সরকার কর্তৃক নির্ধারিত কোটাঃ
  • মহিলা-২০%, এসএসসি (ভোকেশনাল)-১৫%, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী আবেদনকারীদের –ঢাকা, চট্টগ্রাম, বাংলাদেশ-সুইডেন পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের প্রতিটিতে ৪টি করে ও অন্যান্য পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ২টি করে, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান/সন্তানের প্রতি টেকনোলজিতে প্রতি গ্রুপে ২টি করে, বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিক্ষার্থী কোটা ৫% এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় এর অধীন কারিগরি শিক্ষা বোর্ড, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর ও অধিদপ্তরাধীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শিক্ষক/কর্মকর্তা/কর্মচারীর সন্তানদের জন্য ২% আসনে মেধা ও আবেদন ফরমে বর্ণিত পছন্দের ভিত্তিতে কোটা সংরক্ষণ করে ভর্তি করা হবে।
  • এসএসসি সহ বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত ০২ (দুই) বছর মেয়াদী ট্রেড কোর্স পাস প্রার্থীদের ট্রেড কোর্সে প্রাপ্ত নম্বরের ও এসএসসি পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে মেধা নির্ধারণ করা হবে এবং তাদেরকে ৫% সংরক্ষিত আসনে ভর্তি করা হবে।
  • সরকার নির্ধারিত কোটার আবেদনের প্রমাণপত্রঃ (ক) ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী আবেদনকারীদের সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ বা পৌরসভার চেয়ারম্যান কর্তৃক প্রদত্ত সনদপত্র (খ) মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের/সন্তানের সন্তানদের সনাক্তকরণের জন্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় হতে প্রদত্ত সনদপত্র (গ) শিক্ষা মন্ত্রণালয়, এর অধীন কারিগরি শিক্ষা বোর্ড, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর ও অধিদপ্তরাধীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শিক্ষক/কর্মকর্তা/কর্মচারীর সন্তানদের সনাক্তকরণের জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/দপ্তর/প্রতিষ্ঠান প্রধানের সনদপত্র (ঘ) বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিক্ষার্থীর ক্ষেত্রে সমাজসেবা অধিদপ্তরের সনদপত্র এবং (ঙ) বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত ০২ (দুই) বছর মেয়াদী ট্রেড কোর্সধারীদের সনদপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি, আবেদনকারীর Application ID সম্বলিত প্রিন্ট আউটসহ আবেদনপত্র নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে ডাকযোগে/সরাসরি অফিস চলাকালীন সময়ে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের পিছনের বিল্ডিংয়ের ২০১ নং কক্ষে সরাসরি অথবা ডাকযোগে পৈাঁছানো নিশ্চিত করতে হবে।। অন্যথায় তার কোটা বিবেচিত হেব না। ট্রেড কোর্সধারী শিক্ষার্থীদের ট্রেড সংশ্লিষ্ট বিভাগে ভর্তি করা হবে।
  • অন-লাইনে আবেদনের পর সরকার নির্ধারিত কোটা সুবিধা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে উল্লেখিত সংশ্লিষ্ট সকল প্রমাণপত্রসমূহ (Application ID সম্বলিত আবেদনের প্রিন্ট কপিসহ) নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে আবেদন ফরম পাওয়া না গেলে প্রযোজ্য কোটা বিবেচ্য হবে না।
  • সরকার নির্ধারিত কোটার উপযুক্ত প্রার্থী পাওয়া না গেলে পর্যায়ক্রমে মেধা তালিকা/অপেক্ষমান তালিকা হতে কোটাভিত্তিক শূন্য আসন পূরণ করা হবে।
শূন্য আসন পূরণঃ
  • ভর্তিকৃত ছাত্র/ছাত্রীদের মধ্যে কেউ ক্লাস শুরুর ০৭(সাত) কার্যদিবসের মধ্যে ক্লাসে অনুপস্থিত থাকলে তার ভর্তি বাতিল বলে গণ্য হবে।  উক্ত শূণ্য আসনে পরবর্তী ০৭(সাত) কার্যদিবসের মধ্যে নির্বাচিত ও ভর্তিচ্ছুকদের তালিকা হতে মেধার ক্রমানুসারে পূরণ করা হবে।
  • ভর্তির ক্ষেত্রে ২০% ড্রপ-আউট বিবেচনায় টেকনোলজি ভিত্তিক প্রতি গ্রুপে আসন সংখ্যা ৫০(পঞ্চাশ) নির্ধারণ করা হয়েছে।
ভর্তি সংক্রান্ত অন্যান্য তথ্যাবলিঃ
  • অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ, ছবি সংযোজন, টেলিটকের মাধ্যমে আবেদন ফি প্রেরণসহ আনুষঙ্গিক কার্যক্রম প্রার্থীকে নিজ দায়িত্বে সম্পন্ন করতে হবে। প্রার্থী এ বিষয়ে কারো সহযোগীতা নিয়ে প্রতারিত হলে কর্তৃপক্ষ এর জন্য দায়ী থাকেবে না।
  • ভর্তি সংক্রান্ত যাবতীয় কার্যক্রম অন-লাইন এবং ভর্তি নীতিমালা-২০১৯অনুযায়ী সম্পাদিত হবে।







1 Comments

Post a Comment

Previous Post Next Post

কোনো কিছু জিজ্ঞাসা করতে চান?


সুপ্রিয় বন্ধুরা! আপনারা কোনো কিছু জানতে চাইলে, পোষ্টের কমেন্ট বক্সে জিজ্ঞাসা করতে পারবেন। আর আমাদের সাইটের কোনো লিংকে ক্লিক করার পর অন্য সাইটে চলে গেলে ভয় পাবেন না। তা কেটে দিয়ে অথবা মোবাইলের ব্যাক বাটনে ক্লিক করে আবার ঐ লিংকে ক্লিক করুন কাঙ্ক্ষিত তথ্য পাবেন। -------ধন্যবাদ��