বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড আওতাধীন ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে সকল সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব গ্লাস এন্ড সিরামিক, গ্রাফিক আর্টস ইনস্টিটিউট, ফেনী কম্পিউটার ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ সার্ভে ইনস্টিটিউট (কুমিল্লা), রাজশাহী সার্ভে ইনস্টিটিউট, ভােকেশনাল টিচার্স ট্রেনিং ইনস্টিটিউট (বগুড়া), নেক্টার (বগুড়া) এবং সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ সমূহে ০৪ (০৪) বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং, ডিপ্লোমা-ইন-টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এবং ডিপ্লোমা-ইন-ট্যুরিজম এন্ড হসপিটালিটি কোর্সে ১ম ও ২য় শিফটে ছাত্র / ছাত্রী ভর্তি এবং বিএমইটি পরিচালিত বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব মেরিন টেকনােলজিতে ৪ বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা ইন মেরিন, শিপ বিল্ডিং টেকনােলজিতে ভর্তির বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়েছে।

পলিটেকনিক ভর্তি তথ্য ২০২০-২০২১ - Edu Masail
পলিটেকনিক ভর্তি তথ্য ২০২০-২০২১

পলিটেকনিক ভর্তি তথ্য ২০২০-২০২১ | বিস্তারিত

সুপ্রিয় বন্ধুরা! আপনারা এডু মাসাইলের (edu masail) এই পোষ্ট হতে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড আওতাধীন সরকারি পলিটেকনিক ভর্তি যোগ্যতা, ভর্তির প্রাথমিক আবেদন পদ্ধতি, ফি জমাদানের নিয়মাবলী, ভর্তি সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ সময়সূচী সহ প্রাসঙ্গিক আরও অনেককিছু জানতে পারবেন। চলুন শুরু করা যাক:


পলিটেকনিক ভর্তির যোগ্যতা ২০২০


  • সকল শিক্ষা বোর্ড অথবা উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যেকোনো সালের এসএসসি, দাখিল, এসএসসি ভোকেশনাল এবং দাখিল ভোকেশনাল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে পলিটেকনিক ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে।
  •  তবে ছেলেদের ক্ষেত্রে সাধারণ গণিত বা উচ্চতর গণিতে জি.পি.এ ৩.০০ পয়েন্ট সহ ন্যূনতম মোট জি.পি.এ ৩.৫০ প্রাপ্ত এবং মেয়েদের ক্ষেত্রে সাধারণ গণিত বা উচ্চতর গণিতে জি.পি.এ ৩.০০ পয়েন্ট সহ ন্যূনতম মোট জি.পি.এ ৩.০০ প্রাপ্ত শিক্ষার্থী এবং 'ও' লেভেলে যেকোনো একটি বিষয়ে 'সি' গ্রেড প্রাপ্ত এবং গণিতসহ অন্য যেকোনো দুই বিষয়ে কমপক্ষে 'ডি' গ্রেড প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা পলিটেকনিকে আবেদন করার যোগ্য হবে।
  • জিপিএ পদ্ধতি চালুর পূর্বে এসএসসি বা সমমান পরীক্ষায় কমপক্ষে ২য় বিভাগ প্রাপ্ত এবং যে কোনো বয়সের শিক্ষার্থী আবেদন করতে পারবে। 
আবেদন ফিঃ ১ম ও ২য় শিফটের প্রত্যেক শিফটের জন্য আবেদন ফি ১৫০/- টাকা।


পলিটেকনিক ভর্তির গুরুত্বপূর্ণ তারিখসমূহ
  • আবেদনের সময়সীমা : ০৯/০৮/২০২০ থেকে ২৬/০৮/২০২০ তারিখ, রাত ১১:৫৯ পর্যন্ত।
  • ১ম মেধা তালিকার ফল প্রকাশ৩০/০৮/২০২০
  • অনলাইনে ভর্তি নিশ্চায়ন : ৩১/০৮/২০২০ থেকে ০৪/০৯/২০২০ তারিখ পর্যন্ত।
  • ২য় পর্যায়ে আবেদনের সময় : ০৫/০৯/২০২০ থেকে ০৮/০৯/২০২০, রাত ১১:৫৯ পর্যন্ত।
  • ১ম মাইগ্রেশনের ফল প্রকাশ : ১০/০৯/২০২০
  • ১ম মেধা তালিকার ফল প্রকাশ : ১১/০৯/২০২০
  • অনলাইনে ভর্তি নিশ্চায়ন : ১১/০৯/২০২০ থেকে ১৪/০৯/২০২০ তারিখ পর্যন্ত।
  • ৩য় পর্যায়ে আবেদনের সময় : ১৫/০৯/২০২০ থেকে ১৮/০৯/২০২০, রাত ১১:৫৯ পর্যন্ত।
  • ২য় মাইগ্রেশনের ফল প্রকাশ :  ২০/০৯/২০২০
  • ৩য় মেধা তালিকার ফল প্রকাশ :  ২১/০৯/২০২০
  • অনলাইনে ভর্তি নিশ্চায়ন : ২১/০৯/২০২০ থেকে ২২/০৯/২০২০ তারিখ পর্যন্ত।
  • স্ব-স্ব প্রতিষ্ঠানে চূড়ান্ত ভর্তি সময় : ২৩/০৯/২০২০ থেকে ৩০/০৯/২০২০ তারিখ পর্যন্ত।
  • ক্লাশ শুরু : কোভিড -১৯ পরিস্থিতি বিবেচনা সাপেক্ষে ক্লাশ আরম্ভের তারিখ পরবর্তীতে ওয়েবসাইট ও এসএমএস এর মাধ্যমে জানানাে হবে।

বিঃ দ্রঃ  ২৩/০৯/২০২০ হতে ৩০/০৯/২০২০ তারিখের মধ্যে প্রতিষ্ঠানে স্ব-শরীরে ভর্তি না হলে, অনলাইন ভর্তি বাতিল বলে গণ্য হবে। আসন শূন্য থাকা সাপেক্ষে ০১/১০/২০২০ হতে ১০/১০/২০২০ এর মধ্যে অপেক্ষামান তালিকা হতে ভর্তি করা হবে। যেসকল শিক্ষার্থী অপেক্ষামান তালিকা হতে ভর্তি নিশ্চায়ণ সম্পন্ন করবে, তারা ভর্তি নিশ্চায়নের শেষ তারিখ হতে পরবর্তী ০৫ কার্য দিবসের মধ্যে সরকারি পলিটেকনিক / টিএসসি বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব মেরিন টেকনােলজি তে সরাসরি স্ব-শরীরে ভর্তির কার্যক্রম সম্পন্ন করতে হবে।


পলিটেকনিক ভর্তির মেধাতালিকার ফলাফল 2020

বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোর্ড এর আওতাধীন সকল সরকারি ও বেসরকারি পলিটেকনিক/সমমান প্রতিষ্ঠান সমূহে ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে  ডিপ্লোমা ইঞ্জিয়ারিং কোর্স ভর্তির ১ম মেধাতালিকার ফলাফল ৩০ আগস্ট রাত ৮:০০ টায় প্রকাশিত হয়েছে।

ফলাফল দেখার লিংক : পলিটেকনিক ভর্তির মেধাতালিকার ফলাফল দেখুন এখান থেকে
পলিটেকনিক ভর্তির রেজাল্ট জনার নিয়ম :
  • প্রথমে নিম্নে দেওয়া রেজাল্ট দেখার বক্সে ক্লিক করুন। অথবা সরাসরি ওয়েবসাইটেও যেতে পারেন।
  • এরপর roll number অপশনে রোল নম্বর দিন।
  • এরপর board অপশনে বোর্ডের নাম দিন।
  • এরপর year অপশনে 2020 দিন।
  • এবার bteb result অপশনে ক্লিক করে রেজাল্ট দেখে নিন।

পলিটেকনিকে আবেদন করার পদ্ধতি ২০২০-২০২১

বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোর্ড আওতাধীন কোনো কোর্সে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীকে আবেদন করার ১ ঘন্টা পূর্বে টেলিটক/বিকাশ/রকেট/শিওরক্যাশ -এর মাধ্যমে ১ম শিফট বা ২য় শিফট অথবা উভয় শিফটের জন্য আবেদন ফি বাবত ১৫০ অথবা ৩০০ টাকা প্রদান/জমা দিয়ে অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে।


আবেদন ফি জমা দেওয়ার পদ্ধতি  

পলিটেকনিকে ভর্তি হওয়ার জন্য আবেদন করার পূর্বে আবেদন ফি আলাদাভাবে প্রদান করতে হয়। আর এই আবেদন ফি বিভিন্ন মাধ্যমে জমা দেওয়া যায়। যথা: বিকাশ, রকেট, শিওরক্যাশ এবং টেলিটক এর মধ্যমে। নিম্নে জনপ্রিয় মাধ্যম বিকাশ ও টেলিটকের মাধ্যমে আবেদন ফি জমা দেওয়ার পদ্ধতি বর্ণনা করা হলো:-

বিকাশ এর মাধ্যমে ফি জমা দেওয়ার পদ্ধতি
  • ধাপ -১ : বিকাশ অ্যাপ ডাউললােড করতে হবে।
  • ধাপ -২ : বিকাশ অ্যাপে প্রবেশ করতে হবে।
  • ধাপ -৩ : Pay Bill নির্বাচন করতে 4797-8 : Organization Type থকে Education নির্বাচন করতে হবে।
  • ধাপ -৫ : Education নির্বাচন করার পর DTE লিখে সার্চ করতে হবে অথব Scroll Down করে মেনু থেকে সিলেক্ট করতে হবে।
  • ধাপ- ৬ঃ পেমেন্ট কোড শিফট > < পাসের সন > < বাের্ড কোড > < রােল নম্বর ও মােবাইল নম্বর দিতে হবে।
  • ধাপ -৭ঃ সবকিছু ঠিক থাকলে আবেদন ফি এর পরিমান দিতে হবে। (১৫০ টাকা , উভয় শিফটের জন্য ৩০০ / - টাকা)
  • ধাপ -৮ : Pin Number চাইলে ঐ বিকাশ একাউন্টের পিন নম্বর প্রদান করতে হবে এবং টিপ দিয়ে
  • ধাপ -৯ : Payment সফল হলে Successful SMS প্রদর্শিত হবে। পরবর্তি ব্যবহারের জন্য আপনার Payment Receipt ডাউনলােড করে রাখুন।
রকেট এর মাধ্যমে ফি জমা দেওয়ার পদ্ধতি
  • ধাপ -১ : *322# ডায়াল করতে হবে। Bill Pay নির্বাচন করতে হবে।
  • ধাপ -২ : Successful SMS পাওয়ার জন্য নিজ রকেট একাউন্ট হলে Self / অন্য রকেট একাউন্ট হলে other নির্বাচন।
  • ধাপ -৩ যােগাযােগের জন্য মােবাইল নম্বর দিতে হবে।
  • ধাপ -৪ Other নির্বাচন করতে হবে।
  • ধাপ -৫ : Biller ID (288 ) ইনপুট দিতে হবে।
  • ধাপ -৬ : Bill Number :  <শিফট> <পাসের সন > <বাের্ড কোড > < রােল নম্বর > এন্ট্রি দিতে হবে। তবে স্পেস দেওয়ার প্রয়ােজন নেই।
  • ধাপ -৭ : Amount # 150 / 300 টাকা এন্ট্রি দিতে হবে।
  • ধাপ -৮ : Pin Number চাইলে ঐ রকেট একাউন্টের পিন নম্বর প্রদান করতে হবে। Payment সফল হলে TXN নাম্বার সহ Successful SMS প্রদর্শিত হবে।

বোর্ড কোর্ড :  আবেদনকারী যে শিক্ষা বাের্ড থেকে এস.এস.সি. পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে, ঐ বাের্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর (যেমন : ঢাকা বাের্ডের বেলায় (DHA), সিলেট (SYL), বরিশাল (BAR), চট্টগ্রাম (CHA), কুমিল্লা (CUM), দিনাজপুর (DIN), যশাের (JAS), রাজশাহী (RAJ), মাদ্রাসা (MAD), কারিগরি (TEC), ময়মনসিংহ (MYM), উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় (BOU), অন্যান্য (OTH)

এবং ১ম শিফট হলে (A), ২ য় শিফট হলে (B) এবং উভয় শিফট হলে (C) হবে।


টেলিটক এর মাধ্যমে ফি জমা দেওয়ার পদ্ধতি 
  • টেলিটক প্রিপেইড সংযোগ/সিম থেকে মোবাইলের মেসেজ অপশনে গিয়ে লিখুন BTAD 
  • এরপর স্পেস দিয়ে এসএসসি/সমমান পরীক্ষা পাসের Board এর প্রথম তিন অক্ষর।
  • এসএসসি/সমমান পরীক্ষা পাসের রোল নম্বর 
  • এসএসসি/সমমান পরীক্ষা পাসের সন
  •  ভর্তিচ্ছু শিফট এর নির্দিষ্ট অক্ষর
  •  এরপর প্রেরন করুন ১৬২২২ নাম্বারে।
  • উদাহরণঃ BTAD DHA 123456 2020 S
উল্লেখ্য যে, উপরের উদাহরনে S -এর স্থলে ১ম শিফট হলে A দিবেন। ২য় শিফট হলে B দিবেন। আর উভয় শিফট হলে C দিবেন।

তারপর প্রার্থী আবেদনের যোগ্য হলে আবেদন কারীর নাম, পিতার নাম এবং ১ম বা ২য় শিফটের জন্য আবেদন ফি বাবত ১৫০/- অথবা উভয় শিফটের জন্য আবেদন ফি বাবত ৩০০/- টাকা কেটে রাখার সম্মতি চেয়ে ফিরতি SMS দেওয়া হবে। ফিরতি SMs- এ আবেদনকারীর তথ্যাবলি সঠিক থাকলে, পূনরায় SMS পাঠিয়ে সম্মতি দিবেন। সম্মতি দেওয়ার জন্য নিম্নোক্তভাবে মেসেজ অপশনে গিয়ে লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে,
  •   BTAD   YES  PIN Number   মোবাইল নম্বর 
  •  উদাহরণঃ BTAD YES 252525 0171725****

উল্লেখ্য যেযেকোনো অপারেটরের মোবাইল নম্বর শুধুমাত্র একজন প্রার্থীর ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে হবে। এরপর ফিরতি SMS- এ প্রার্থীকে একটি Money receipt number দেওয়া  হবে। উল্লেখ্য যে,  Money receipt number টি নিজ দায়িত্বে সংরক্ষণ করতে হবে এবং এটি পাওয়ার পর অনলাইনে আবেদন ফরম পূরন করতে হবে। Money receipt number ছাড়া কোনোভাবেই অনলাইনে আবেদন ফরম পূরন করা যাবে না।

পলিটেকনিক ভর্তির আবেদন ফরম পূরণ পদ্ধতি 


বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড আওতাধীন কোনো প্রতিষ্ঠানে ভর্তির জন্য www.btebadmission.gov.bd অথবা www.bteb.gov.bd অথবা www.tmed.gov.bd অথবা www.techedu.gov.bd অথবা ওয়েবসাইটের Home page হতে “পলিটেকনিক - টিএসসি (ডিপ্লোমা) ভর্তি" বাটনে ক্লিক করে Application form Open করতে হবে।

  • ১ম ধাপে আবেদনকারী উল্লিখিত শর্তাবলি অনুযায়ী যােগ্য হলে টেলিটক / রকেট / শিওরক্যাশ / বিকাশ এর মাধ্যমে ফি জমা দিতে হবে। সকল ভর্তির আবেদনকারীর ফলাফল সংশ্লিষ্ট বাের্ড / উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় হতে যাচাই করা হবে। ভূল তথ্য দিয়ে আবেদন ফি জমা দিলে অথবা ভর্তির আবেদন করলে, ফলাফলের জন্য বিবেচিত হবে না এবং আবেদন স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাতিল বলে গণ্য হবে।
  • ২য় ধাপে টেলিটক / রকেট / শিওরক্যাশ / বিকাশ এর SMS এর মাধ্যমে পাওয়া Transaction Code পূরণ করতে হবে। Transaction Code সঠিক হলে পরের ধাপে যেতে পারবে।
  • ৩য় ধাপে আবেদনকারীর তথ্য প্রদর্শিত হবে এবং এখানে আবেদনকারীর ছবি (পরিষ্কার পাসপাের্ট সাইজের রঙিন ছবি JPEG Format -এ, এবং অনধিক ১০০ KB) আপলােড করতে হবে। এছাড়াও আবেদনকারীর কোন কোটা থাকলে হলে সেই সংক্রান্ত document আপলােড করতে হবে।
  • ৪র্থ ধাপে সকল প্রতিষ্ঠান এবং প্রতিষ্ঠানের টেকনােলজি ও শিট প্রদর্শিত হবে এবং সেখান থেকে প্রতি শিফট এ অনধিক ১৫ টি করে প্রতিষ্ঠান-টেকনােলজি পছন্দ করতে পারবে। উভয় শিটের জন্য ৩০ টি করে প্রতিষ্ঠান-টেকনােলজি পছন্দ করতে পারবে।
  • ৫ম ধাপে প্রতিষ্ঠান-টেকনােলজি পছন্দ শেষ হলে পছন্দকৃত সকল শিফ্ট - প্রতিষ্ঠান - টেকনােলজি প্রদর্শিত হবে এবং এখানে আবেদনকারী তার পছন্দক্রম পরিবর্তন করতে পারবে।
  • ৬ষ্ট ধাপে আবেদনকারীকে তার সকল তথ্য, ছবি, পছন্দকৃত প্রতিষ্ঠান - টেকনােলজি এবং পছন্দক্রম প্রদর্শন করা হবে, এবং আবেদন সম্পন্ন করার সর্বশেষ অনুমতি চাওয়া হবে।
  • ৭ম ধাপে আবেদন সম্পন্ন হলে আবেদনকারীর মােবাইলে SMS এর মাধ্যমে আবেদনের Application ID এবং Pin Number পাঠানাে হবে। এই Application ID এবং Pin Number দিয়ে পরবর্তীতে আবেদনকারী তার আবেদনের তথ্যসমূহ সংশােধন করতে পারবে।

Application ID এবং Pin Number গােপনীয়ভাবে লিখে রাখার জন্য অনুরােধ করা হলাে। Pin Number হারিয়ে গেলে www.btebadmission.gov.bd লিংকে গিয়ে চাহিত তথ্য পুরনের মাধ্যমে Pin Number পুনরুদ্ধার করা যাবে।




মেধাতালিকা প্রণয়ন
এসএসসি সমমান পরীক্ষায় পাসের রেজাল্ট, পছন্দের ক্রম, কোটা ও অন্যান্য প্রযোজ্য শর্তের ভিত্তিতে প্রার্থীর মেধা তালিকা প্রণয়ন করা হবে।
আপেক্ষমান তালিকা প্রণয়নঃ
  • মোট আসন সংখ্যা অনুযায়ী মেধা, পছন্দের ক্রম ও কোটা ভিত্তিক তালিকা প্রণয়নের পাশাপাশি একটি অপেক্ষমাণ তালিকা প্রণয়ন করা হবে।
  • মেধাক্রম অনুযায়ী ভর্তিকৃত প্রার্থী পছন্দের ক্রমানুসারে প্রতিষ্ঠান-টেকনোলজি ভিত্তিক মাইগ্রেশনের সুযোগ পাবে।
  • মেধা তালিকা অনুযায়ী ভর্তির সময়সীমা অতিক্রান্ত হওয়ার পর প্রতিষ্ঠান/টেকনোলজি ভিত্তিক শূন্য আসনে অপেক্ষমান তালিকা হতে মেধা, পছন্দের ক্রম ও কোটার ক্রমানুসারে ভর্তি করা হবে।

সরকার কর্তৃক নির্ধারিত কোটা
  • মহিলা-২০%, এসএসসি (ভোকেশনাল)-১৫%, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী আবেদনকারীদের –ঢাকা, চট্টগ্রাম, বাংলাদেশ-সুইডেন পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের প্রতিটিতে ৪টি করে ও অন্যান্য পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ২টি করে, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান/সন্তানের প্রতি টেকনোলজিতে প্রতি গ্রুপে ২টি করে, বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিক্ষার্থী কোটা ৫% এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় এর অধীন কারিগরি শিক্ষা বোর্ড, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর ও অধিদপ্তরাধীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শিক্ষক/কর্মকর্তা/কর্মচারীর সন্তানদের জন্য ২% আসনে মেধা ও আবেদন ফরমে বর্ণিত পছন্দের ভিত্তিতে কোটা সংরক্ষণ করে ভর্তি করা হবে।
  • এসএসসি সহ বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত ০২ (দুই) বছর মেয়াদী ট্রেড কোর্স পাস প্রার্থীদের ট্রেড কোর্সে প্রাপ্ত নম্বরের ও এসএসসি পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে মেধা নির্ধারণ করা হবে এবং তাদেরকে ৫% সংরক্ষিত আসনে ভর্তি করা হবে।
  • সরকার নির্ধারিত কোটার আবেদনের প্রমাণপত্রঃ (ক) ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী আবেদনকারীদের সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ বা পৌরসভার চেয়ারম্যান কর্তৃক প্রদত্ত সনদপত্র (খ) মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের/সন্তানের সন্তানদের সনাক্তকরণের জন্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় হতে প্রদত্ত সনদপত্র (গ) শিক্ষা মন্ত্রণালয়, এর অধীন কারিগরি শিক্ষা বোর্ড, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর ও অধিদপ্তরাধীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শিক্ষক/কর্মকর্তা/কর্মচারীর সন্তানদের সনাক্তকরণের জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/দপ্তর/প্রতিষ্ঠান প্রধানের সনদপত্র (ঘ) বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিক্ষার্থীর ক্ষেত্রে সমাজসেবা অধিদপ্তরের সনদপত্র এবং (ঙ) বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত ০২ (দুই) বছর মেয়াদী ট্রেড কোর্সধারীদের সনদপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি, আবেদনকারীর Application ID সম্বলিত প্রিন্ট আউটসহ আবেদনপত্র নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে ডাকযোগে/সরাসরি অফিস চলাকালীন সময়ে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের পিছনের বিল্ডিংয়ের ২০১ নং কক্ষে সরাসরি অথবা ডাকযোগে পৈাঁছানো নিশ্চিত করতে হবে।। অন্যথায় তার কোটা বিবেচিত হেব না। ট্রেড কোর্সধারী শিক্ষার্থীদের ট্রেড সংশ্লিষ্ট বিভাগে ভর্তি করা হবে।
  • অন-লাইনে আবেদনের পর সরকার নির্ধারিত কোটা সুবিধা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে উল্লেখিত সংশ্লিষ্ট সকল প্রমাণপত্রসমূহ (Application ID সম্বলিত আবেদনের প্রিন্ট কপিসহ) নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে আবেদন ফরম পাওয়া না গেলে প্রযোজ্য কোটা বিবেচ্য হবে না।
  • সরকার নির্ধারিত কোটার উপযুক্ত প্রার্থী পাওয়া না গেলে পর্যায়ক্রমে মেধা তালিকা/অপেক্ষমান তালিকা হতে কোটাভিত্তিক শূন্য আসন পূরণ করা হবে।
শূন্য আসন পূরণঃ
  • ভর্তিকৃত ছাত্র/ছাত্রীদের মধ্যে কেউ ক্লাস শুরুর ০৭ (সাত) কার্যদিবসের মধ্যে ক্লাসে অনুপস্থিত থাকলে তার ভর্তি বাতিল বলে গণ্য হবে।  উক্ত শূণ্য আসনে পরবর্তী ০৭ (সাত) কার্যদিবসের মধ্যে নির্বাচিত ও ভর্তিচ্ছুকদের তালিকা হতে মেধার ক্রমানুসারে পূরণ করা হবে।
  • ভর্তির ক্ষেত্রে ২০% ড্রপ-আউট বিবেচনায় টেকনোলজি ভিত্তিক প্রতি গ্রুপে আসন সংখ্যা ৫০(পঞ্চাশ) নির্ধারণ করা হয়েছে।
ভর্তি সংক্রান্ত অন্যান্য তথ্যাবলিঃ
  • অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ, ছবি সংযোজন, টেলিটকের মাধ্যমে আবেদন ফি প্রেরণসহ আনুষঙ্গিক কার্যক্রম প্রার্থীকে নিজ দায়িত্বে সম্পন্ন করতে হবে। প্রার্থী এ বিষয়ে কারো সহযোগীতা নিয়ে প্রতারিত হলে কর্তৃপক্ষ এর জন্য দায়ী থাকেবে না।
  • ভর্তি সংক্রান্ত যাবতীয় কার্যক্রম অন-লাইন এবং ভর্তি নীতিমালা-২০২০ অনুযায়ী সম্পাদিত হবে।




পলিটেকনিক ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২০-২০২১




2 Comments

  1. এখন কি সরকারি তে আবেদন করা যাবে ভর্তি হওয়া যাবে যদি বলতেন বা আবার কখন শুরু হবে দুটোতেই আমি বিজ্ঞান

    ReplyDelete
    Replies
    1. না, এখন আর ভর্তির সময় নেই। আর আগামি বছর।

      Delete

Post a Comment

Previous Post Next Post

কোনো কিছু জিজ্ঞাসা করতে চান?


সুপ্রিয় বন্ধুরা! আপনারা কোনো কিছু জানতে চাইলে, পোষ্টের কমেন্ট বক্সে জিজ্ঞাসা করতে পারবেন। আর আমাদের সাইটের কোনো লিংকে ক্লিক করার পর অন্য সাইটে চলে গেলে ভয় পাবেন না। তা কেটে দিয়ে অথবা মোবাইলের ব্যাক বাটনে ক্লিক করে আবার ঐ লিংকে ক্লিক করুন কাঙ্ক্ষিত তথ্য পাবেন। -------ধন্যবাদ��